ঢাকা মঙ্গলবার
২৫ জুন ২০২৪
২২ জুন ২০২৪

১০ মিনিটে লণ্ডভণ্ড ২০ গ্রাম


ডেস্ক রিপোর্ট
213

প্রকাশিত: ১৬ মে ২০২৩ | ০৫:০৫:৩৬ পিএম
১০ মিনিটে লণ্ডভণ্ড ২০ গ্রাম ফাইল-ফটো



রংপুরের পীরগাছায় ১০ মিনিটের কালবৈশাখী ঝড়ে লণ্ডভণ্ড হয়েছে গেছে অন্তত ২০টি গ্রাম। সোমবার (১৫ মে) রাত সোয়া ১০টার দিকে আকস্মিক বৃষ্টির সঙ্গে শুরু হয় প্রচণ্ড ঝড়। এতে ধসে গেছে অসংখ্য ঘরবাড়ি। উপড়ে গেছে গাছ-পালা। বিভিন্ন এলাকায় গাছের ডাল পড়ে বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে বিদ্যুৎ-সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। ঝড়ের পাশাপাশি শিলাবৃষ্টিতে ধান, ভুট্টা, কলা, আম ও লিচুসহ বিভিন্ন মৌসুমি ফলেরও ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার তাম্বুলপুর ইউনিয়নের ঘগোয়া, রহমত চর, ছাওলা ইউনিয়নের পাওটানা, শিবদেব চর, গাবুড়া এবং ইটাকুমরী, পারুল ইউনিয়নের মহিষমুড়িসহ প্রায় ২০টি গ্রাম ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ১০ মিনিট স্থায়ী হওয়া এই ঝড়ে বাড়িঘর, আম, কলা, ফসল, বিদ্যুতের পোল ও বিভিন্ন গাছ ভেঙে গেছে। ফলে পুরো উপজেলা এখন বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

তীব্র ঝড়ে ব্রাহ্মণীকুন্ডা বাজারের মদিনাতুল উলুম নূরানী হাফেজি ও ক্বওমি মাদরাসার ঘর পড়ে গেছে। চৌধুরাণী- কান্দি সড়কে অসংখ্য গাছ পড়ে যায়। পরে স্থানীয়রা গাছ সরিয়ে ফেললে যাতায়াত ব্যবস্থা স্বাভাবিক করেন।

উপজেলার তাম্বুলপুর ইউনিয়নের রহমত চরের বাসিন্দা হাসান মাহমুদ বলেন, গোয়াল ঘরে কয়েকটি গরু ছিল। ঝড়ের সময় ঘরের ওপর গাছ ভেঙে পড়লে একটি গরু মারা যায়। এ ছাড়া আরো দুইটা ঘর একদম ভেঙে যাওয়ায় খোলা আকাশের নিচে আছি।

তাম্বুলপুর এলাকার শাহীন পাটোয়ারী বলেন, অন্য এলাকার মতো তাম্বুলপুরে ঘর-বাড়ি, গাছপালা ও বৈদ্যুতিক লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বজলুর রশীদ বলেন, কালবৈশাখী ঝড়ে অনেক বাড়িঘর ভেঙে গেছে। ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা করে সহযোগিতা করা হবে।

পীরগাছা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আব্দুল আজিজ বলেন, আমরা ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা তৈরির কাজ করছি। তাদের সহযোগিতা করা হবে।

রংপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ পীরগাছা জোনাল অফিসের ডিজিএম মোজাম্মেল হক বলেন, ঝড়ে পীরগাছায় অন্তত ২০টি স্থানে বৈদ্যুতিক খুঁটি পড়ে গেছে। অনেক স্থানে তার ছিঁড়ে বিদ্যুৎ-সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে। বর্তমানে এসব খুঁটি পরিবর্তনে কাজ চলছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে বলে আশা করছি।


আরও পড়ুন: