ঢাকা সোমবার
১৭ জুন ২০২৪
২৭ নভেম্বর ২০২৩

স্টার্টআপে বিনিয়োগ কমেছে ৭৪ শতাংশ


ডেস্ক রিপোর্ট
292

প্রকাশিত: ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ | ০৯:০২:২৫ এএম
স্টার্টআপে বিনিয়োগ কমেছে ৭৪ শতাংশ ফাইল-ফটো



করোনা মহামারি শুরুর পরের বছরই দেশের স্টার্টআপ খাতে বিনিয়োগের স্রোত দেখা যায়। সম্ভাবনাময় খাত হিসেবে বিকাশ ঘটতে থাকে স্টার্টআপের। এর মধ্যে কিছু প্রতিষ্ঠান তো মানুষের প্রাত্যহিক জীবনের অংশই হয়ে গেছে। তারা ইতিমধ্যে নিজেদের ব্র্যান্ড হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছে। তবে করোনার ধাক্কার পরেই এ খাত অর্থনৈতিক মন্দার মুখে পড়েছে। এক বছরের ব্যবধানেই বিনিয়োগ কমেছে ৭৪ শতাংশ। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, চলতি বছরটি স্টার্টআপের জন্য কঠিন হবে এবং ব্যবসায় অনেক চ্যালেঞ্জ আসবে।

সামনের কয়েক বছর স্টার্টআপগুলোর জন্য কঠিন সময়। তাদের বাস্তববাদী হওয়ার পাশাপাশি ভালো গ্রাহক ধরে রাখা এবং ভালো ব্যবসায়ে নজর বাড়াতে হবে।

নির্ঝর রহমান, প্রধান নির্বাহী, বাংলাদেশ অ্যাঞ্জেলস

তবে ব্যতিক্রমও আছে। ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান পিকাবু গত ডিসেম্বরে দেশি ও বিদেশি বিনিয়োগ পেয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির সহপ্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মরিন হোসেন তালুকদার প্রথম আলোকে বলেন, মূল্যস্ফীতিই এখন বড় সমস্যা। মানুষের ক্রয়ক্ষমতা কমেছে। তাতে তাদের কেনাকাটায় পরিবর্তন এসেছে।

পিকাবুর সিইও আরও বলেন, বিনিয়োগকারীরা এখন দোটানায় রয়েছেন। সামনে পরিস্থিতি কী হতে পারে, যে প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ করা হবে তারা কতটা টেকসই হতে পারবে, কোন নীতিতে চলছে, মন্দা পরিস্থিতিতে খাপ খাইয়ে নেওয়ার মানসিকতা ও প্রস্তুতি আছে কি না, এসব বিষয় পর্যবেক্ষণ করছেন তাঁরা। স্টার্টআপগুলোর বেশির ভাগই সেবাভিত্তিক এবং সরাসরি গ্রাহকের সঙ্গে ব্যবসা করছে। তাই বর্তমান পরিস্থিতিতে বাজার চাহিদা মাথায় রেখে এগোতে হবে।

দেশীয় পরামর্শক প্রতিষ্ঠান লাইটক্যাসল পার্টনার্স দেশের স্টার্টআপ খাত নিয়ে নিয়মিত পর্যবেক্ষণ ও প্রতিবেদন প্রকাশ করে। তারা ১১ জানুয়ারি স্টার্টআপে বিনিয়োগ পরিস্থিতি নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। তাতে বলা হয়েছে, ২০২১ সালে বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি ৪১ কোটি ৫০ লাখ ডলার বিনিয়োগ পেয়েছিল, যা স্থানীয় মুদ্রায় ৪ হাজার ৩৫৭ কোটি টাকার মতো (প্রতি ডলার ১০৫ টাকা ধরে)। ২০২২ সালে এ খাতে বিনিয়োগ ৭৪ শতাংশ কমে ১০ কোটি ৯০ লাখ ডলারে নেমে যায়। আবার এ বিনিয়োগের ৫ কোটি ৩০ লাখ ডলার পেয়েছে শপআপ। অন্যদিকে ২০২১ সালে মোট বিনিয়োগের ২৫ কোটি ডলারই পেয়েছিল মোবাইলে আর্থিক সেবাদাতা (এমএফএস) বিকাশ।

মূল্যস্ফীতিই এখন বড় সমস্যা। মানুষের ক্রয়ক্ষমতা কমেছে। তাতে তাদের কেনাকাটায় পরিবর্তন এসেছে।

মরিন হোসেন তালুকদার, সহপ্রতিষ্ঠাতা ও সিইও, পিকাবু।

করোনা মহামারির ধকল কাটিয়ে বৈশ্বিক অর্থনীতি যখন ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করে, তখনই রাশিয়া–ইউক্রেন যুদ্ধ বাধে। যে কারণে পুরো দুনিয়াই এখন মন্দার মুখে রয়েছে। স্টার্টআপগুলোও বাদ যায়নি। ২০২১ সালে বিশ্বের স্টার্টআপগুলোতে মোট বিনিয়োগ হয়েছিল ৬৩ হাজার কোটি ডলার, যা ২০২২ সালে কমে হয়েছে ৪৩ হাজার ৯০০ কোটি ডলার।

বর্তমানে গোটা বিশ্ব মূল্যস্ফীতির চাপে আছে। সামগ্রিক অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে স্টার্টআপগুলো বিনিয়োগ টানতে হিমশিম খাচ্ছে। বিশেষ করে এশিয়ার স্টার্টআপগুলোর জন্য পরিস্থিতি আরও কঠিন হয়েছে। এর কারণ হিসেবে লাইটক্যাসলের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দক্ষিণ এশিয়ার অর্থনীতি নানা শর্ত ও ঋণের চাপে আছে। বিশেষ করে বাংলাদেশের স্টার্টআপ খাত একেবারে প্রাথমিক পর্যায়ে আছে। সে হিসেবে বাংলাদেশের জন্য বিনিয়োগ পাওয়া এখন আরও কঠিন হয়ে উঠছে।

লাইটক্যাসলের প্রতিবেদনে বাংলাদেশসহ এশিয়ার পাঁচটি দেশ—সিঙ্গাপুর, চীন, ভারত ও পাকিস্তানের বিনিয়োগ চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। তাতে দেখা যায়, বাংলাদেশেই সর্বোচ্চ ৭৪ শতাংশ বিনিয়োগ কমেছে। অন্যদিকে পাকিস্তানে কমেছে মাত্র ৩ শতাংশ।


আরও পড়ুন: